প্রতি বছর ৮ ই জুন বিশ্ব মহাসাগরীয় দিবস (World Oceans Day) পালন করা হয়। ২০০৮ সালে রাষ্ট্রপুঞ্জ আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ব মহাসাগর দিবসকে স্বীকৃতি দিয়েছে । এই বছরের বিষয় ‘মহাসাগরের জন্য উপযুক্ত কোন উদ্ভাবন’। 

অস্বীকার করতে পারি না যে আমরা নিজেদের প্রয়োজনে প্রকৃতিকে কীভাবে ব্যবহার করি এবং তা পুন্রুদ্ধারের চেষ্টা করতেও ভুলে যাই। আমরা ভুলে যাই প্রকৃতির প্রতি আমাদের এই অবহেলা। প্রাকৃতিক সম্পদের এই যথেচ্ছ ব্যবহার কীভাবে প্রভাবিত করে এবং বিশ্বউষ্ণায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ক্রমবর্ধমান কারণকে যুক্ত করে। আমাদের জীবনে পৃথিবীর অবদান এবং গুরুত্ব স্বীকার করা, এর পুনর্নবীকরণ এবং পুনরুদ্ধারে দায়বদ্ধ থাকা উচিৎ।

মহাসাগর প্রকৃতির উপাদান, যা মানুষের ক্রিয়াকলাপ দ্বারা দূষিত হয়ে চলেছে প্রতিদিন। প্লাস্টিকের মোড়ক নিক্ষেপ থেকে অব্যবহৃত বর্জ্য পদার্থ নিক্ষেপ করা পর্যন্ত।  মানুষ হল সমুদ্রের বৃহত্তম দূষণকারী। আমরা যে বিষয়টি বুঝতে ব্যর্থ হই তা হল জলের মধ্যে যে কোনও ধ্বংসাবশেষ এবং দূষক পদার্থ নিক্ষেপ করি না কেন সেগুলি সহজে নষ্ট বা পচে যায় না। এগুলি সমুদ্রের প্রাণী এবং তাদের পরিবেশকে প্রভাবিত করে।

সমুদ্রের  অবদান ভুলে যাওয়া এবং এর প্রতি অমনোযোগীতা দেখে কানাডার আন্তর্জাতিক সমুদ্র উন্নয়ন কেন্দ্র (আইসিওডি) এবং কানাডার ওশেন ইনস্টিটিউট অফ কানাডা (ওআইসি) ১৯৯২ সালে আর্থ সামিটে বিশ্ব মহাসাগর দিবস উদযাপনের প্রস্তাব করেছিল যা পরবর্তীকালে ২০০৮ সালে রাষ্ট্রপুঞ্জ কর্তৃক স্বীকৃত হয়েছিল ।

প্রতি বছরই বিশ্ব মহাসাগরীয় দিবসে কোন একটি বিষয়ের উপর উদযাপিত হয়। এই বছরের বিষয়টির উদ্দেশ্য হল মহাসাগরগুলিকে রক্ষা করতে সহায়তা করতে পারে এমন উদ্ভাবনী পণ্য এবং ধারণাগুলি সন্ধান করা।

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে, এই বছরটির জন্য রাষ্ট্রপুঞ্জ ওশেনিক গ্লোবালের অংশীদার হয়ে ভার্চুয়াল ইভেন্ট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রাষ্ট্রপুঞ্জের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে বিশ্ব মহাসাগর দিবস অনুষ্ঠানটির সম্প্রচারের সময় দেওয়া আছে।

আমাদের যা মেনে চলতে হবে

নিম্নলিখিত বিষয়গুলি আপনি বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সাথে ভাগ করে নিতে এবং সমুদ্র আমাদের জীবনে কিভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে সে সম্পর্কে তাদের অবহিত করতে পারেন।

সমুদ্রকে বাঁচাতে আমাদের প্রত্যেকের কোন না কোন ভূমিকা রয়েছে এবং কোনও প্রচেষ্টাই তুচ্ছ নয়। বিন্দু বিন্দু জলে যেমন বিশাল মহাসাগর তৈরি হয়, তেমনিভাবে আপনার ছোট ছোট প্রচেষ্টাও বৃহত্তর অবদান রাখবে।

আজ বিশ্ব মহাসাগর দিবসটি উদযাপন করার মধ্যে দিয়ে আমাদের সমুদ্র সৈকত বা জলাশয়ের চারপাশের পরিবেশের দিকে  এক মুহূর্ত ফিরে তাকাবার সময় দিতে হবে। বুঝতে হবে কীভাবে এগুলি পৃথিবীকে প্রভাবিত করেছে। এই বিশ্ব মহাসাগর দিবস, সকলকে প্রকৃতির উন্নয়নের উপযুক্ত কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেয়।

মহাসাগরগুলি কেবল জলের আধার নয়, এগুলি আমাদের জীবনের উৎস। সুতরাং এটিকে সব সময় আমাদের রক্ষা এবং সংরক্ষণ করতে হবে। শুভ বিশ্ব মহাসাগর দিবস।

আজ বিশ্ব মহাসাগর দিবস আমাদের স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য এখানে রয়েছে যে মহাসাগর সর্বশক্তিমানের সর্বাধিক সুন্দর ও মূল্যবান সৃষ্টি এবং আমাদের জীবনকে আরও সুখী করার জন্য আমাদের অবশ্যই তাদের সম্মান করতে হবে এবং তাদের বাঁচাতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *