করোনাভাইরাসের উত্‍‌সের সন্ধানে চিনে পৌঁছল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, WHO-র বিশেষজ্ঞ দল। সেখানে তাঁরা করোনা নিয়ে গবেষণা চালাবেন। চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র হুয়া চুনিং সোমবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-র বিশেষজ্ঞ দলের চিনে পৌঁছনোর খবর দিয়েছেন।

চিনের বিজ্ঞানী ও বিশেষজ্ঞদের সাহায্য করবেন হু-র বিশেষজ্ঞরা। করোনা সংক্রান্ত নানা তথ্যও সংগ্রহ করবেন। উদ্দেশ্য, করোনাভাইরাসের উত্‍‌স চিহ্নিত করা।

কিছু বিজ্ঞানীদের ধারণা, ভাইরাসটি সম্ভবত বাদুড় থেকেই উদ্ভূত, সেখান থেকে বিড়াল বা পাঙ্গোলিনের মতো স্তন্যপায়ী প্রাণীর মাধ্যমে  মানুষের শরীরে সংক্রামিত হয়েছিল। বিজ্ঞানীরা মনে করে, এর পিছনে চিনের কেন্দ্রীয় শহর উহানের ফ্রেশ ফুড মার্কেটের বড় ভূমিকা রয়েছে। চীনে ইতিমধ্যেই নির্দেশিকা জারি করে বন্যপশুর মাংস বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে।

WHO-র এই পদক্ষেপ রাজনৈতিক দিক থেকে যথেষ্ট তাত্‍‌পর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।  চিনের প্রতি WHO-এর পক্ষপাতের অভিযোগ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আগেই এই সংস্থার তাঁদের সম্পর্ক ছিন্ন করার কথা ঘোষণা করেছেন। WHO-কে আর্থিক অনুদান বন্ধ করে দেওয়ার কথাও জানিয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প।

গত মে মাসে বিশ্বের ১২০টিরও বেশি দেশ করোনাভাইরাস নিয়ে হু-র কাছে তদন্তের দাবি জানায়। চিন-ও চাইছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাই তদন্তের নেতৃত্ব দিক।

চীনের বিরুদ্ধে করোনাভাইরাসের তথ্য গোপনের অভিযোগ করেন হংকংয়ের এক ভাইরোলজিস্ট। প্রাণভয়ে আমেরিকায় পালিয়ে যাওয়া হংকংয়ের এক ভাইরোলজিস্ট দু-দিন আগেই বেজিংয়ের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেন । কোভিড-১৯ নিয়ে চিনের বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই তথ্য গোপনের অভিযোগ করে এসেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। উহানের গবেষণাগারেই এই ভাইরাসের জন্ম বলে মনে করেন ট্রাম্প।  লি-মেং ইয়ান হংকংয়ের স্কুল অফ পাবলিক হেলথ-এর ভাইরোলজি ও ইমিউনোলজি বিষয়ক বিশেষজ্ঞ, বর্তমানে তিনি প্রাণনাশের হুমকি পেয়ে নিজের দেশ ছেড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় নিয়েছেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *