করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কার হওয়া মাত্রই তা দেশের কোণায় কোণায় পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করবেন তাঁরা, ঘোষণা করলেন নীতা আম্বানি।

বুধবার রিলায়েন্স ফাউন্ডেশেনের বার্ষিক অধিবেশনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে নীতা বলেন, দেশের কোণায়-কোণায় করোনা ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করবে রিলায়েন্সই।

লকডাউনের কারণে  বিশ্ব অর্থনীতি যখন চরম সংকটে, তখনও মুকেশ আম্বানির ভাঁড়ার ভরে উঠছে ধন-সম্পদে। এবার সেই মুকেশ-ঘরণী নীতা আম্বানির ঘোষণায় সাধুবাদ দিচ্ছেন সকলেই।

যদিও করোনার ভ্যাকসিন এখনও আবিষ্কারই হয়নি! নীতা জানিয়ে দিয়েছেন, করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হবার পর তা দেশের সব মানুষের কাছে পৌঁছানোর বিষয়টি সুনিশ্চিত করবে রিলায়েন্স ফাউন্ডেশন। শুধু তাই নয়, নীতা আম্বানি জানিয়েছেন, দেশের প্রত্যেক জায়গায় যাতে গণহারে টেস্ট করা হয়, তার জন্যে কেন্দ্রীয় সরকার ও স্থানীয় পুরসভাগুলির সঙ্গে খুব শীঘ্রই গাঁটছড়া বাঁধবে রিলায়েন্স।

নীতার কথায়, ‘আমি কথা দিচ্ছি, যেদিনই করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হবে, আমরা জিও’র ডিজিটাল ডিস্ট্রিবিউশন ও সাপ্লাই চেন ব্যবহার করে দেশের প্রতিটি কোণায় তা পৌঁছে দেব। দেশের সব মানুষের যাতে করোনা টেস্ট হতে পারে, তার জন্যে আমরা কেন্দ্রীয় সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গেও কথা বলছি।’

উল্লেখ্য, করোনার শুরুর পর লকডাউনের সময় নীতা আম্বানি ঘোষণা করেছিলেন, ‘মিশন অন্ন সেবার মাধ্যমে দেশের ৩ কোটি মানুষের কাছে খাবার পৌঁছে দেব আমরা।’ মিশন অন্ন সেবা হল সমগ্র বিশ্বে কোনও কর্পোরেট ফাউন্ডেশন মারফত সবচেয়ে বড় ডিস্ট্রিবিউশন প্রোগ্রাম। দরিদ্র, অসহায়, শ্রমিক, বৃদ্ধ, অনাথ শিশুদেরও এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে যুক্ত করা হয়েছে। এছাড়াও, BMC-র সঙ্গে পার্টনারশিপে মুম্বইয়ে ভারতের প্রথম ১০০ বেডের করোনা হাসপাতাল গড়ে তুলেছে রিলায়েন্স। লক্ষ-লক্ষ পিপিই ও মাস্কও তাঁরা তুলে দিয়েছেন দেশের স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *