চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস নিয়ে ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের মনোভাবে সন্তুষ্ট নয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তিনি জানিয়েছেন ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের পাশাপাশি হংকংয়ের সঙ্গে বিশেষ বাণিজ্যিক যোগাযোগ বন্ধ করে দেবেন ৷ কারণ এই সেমিঅটোনোমাস সিটিতে চীন গভর্নমেন্টের বিশেষ সুরক্ষা নীতি প্রয়োগ করার জন্য ৷

করোনা ইস্যু নিয়ে এই দুই দেশের সম্পর্ক কার্যত তলানিতে ৷ এছাড়াও বেশ কিছু চিনা নাগরিকের ভিসা বাতিলও করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের জেরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেড়েছেই মৃত্যুর সংখ্যা ৷ সংক্রমণ ছড়িয়ে যাওয়া নিয়ে World Health Organization-র কাজ করার পদ্ধতির গাফিলতিই দায়ী জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তিনি এও বলেছেন যে, হু পুরোপুরি চীন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ৷

হু এর জন্য আমাদের একটা বিস্তারিত নিয়মবিধি ছিল , যা নিয়ে ওরা কাজ করতে পারে, কিন্তু ওরা সেই মতো কাজ করতে রাজি হয়নি ৷ ’হোয়াইট হাউস থেকে এই কথা জানিয়েছেন ট্রাম্প ৷ তিনি আরও বলেছেন, ‘ওদের একটা বড়সড় পরিবর্তন দরকার ছিল ৷ ওরা সেই বদলের অনুরোধ রাখতে পারেনি ৷ আমরা ওদের সঙ্গে  আজকের পর সম্পর্ক ছেদ করলাম ৷

আরও পড়ুন – হু-কে অনুদান বন্ধের হুমকি ট্রাম্পের

আমেরিকার থেকে WHO বিপুল পরিমান আর্থিক সহায়তা পেয়ে আসছিল ৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সবচেয়ে বড় আর্থিক সহায়ক  ছিলেন তারাই ৷ ট্রাম্প জানিয়েছেন এই বিশাল পরিমাণ অর্থ এখন অন্য স্বাস্থ্য সংস্থা যারা বিশ্ব জুড়ে কাজ করে তাদের দিয়ে দেবেন ৷ বিশ্ব জুড়ে কাজ করার জন্য এই সব সংস্থার প্রচুর অর্থ প্রয়োজন হয় ৷ ট্রাম্প জানিয়েছেন যখন প্রথম করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ছড়াতে শুরু করেছিল তখন চীন আধিকারিকদের কথামতো সারা বিশ্বকে ভুল বুঝিয়েছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য অনুদান পেত ৪৫০ মিলিয়ন ডলার  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আর ৪০ মিলিয়ন ডলার দিত চীন ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *