বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত, ১৪ ই জুন ২০২০ রবিবার মুম্বাইয়ের বান্দ্রায় তাঁর নিজের ফ্ল্যাটে আত্মহত্যা করেছেন। মৃত্যুর সময় তাঁর বয়স হয়েছিল ৩৪ বছর। তিনি চলচ্চিত্র সহ  থিয়েটার এবং টিভির অভিনেতাও ছিলেন। নিজের ক্যারিয়ারের শীর্ষে থাকা সুশান্ত এসেছেন বিহারের পূর্ণিয়া থেকে। তাঁর বাবা একজন সরকারী কর্মকর্তা। ক্রিকেটার মহেন্দ্র সিং ধোনির বায়োপিকে তিনি ধোনির চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। তাঁর আত্মহত্যার খবরে বিহারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এই খবর শুনে পাটনার বাসভবনে তাঁর বাবা অজ্ঞান হয়ে গিয়েছেন বলে জানা যায়। এই বিশৃঙ্খলার পরিবেশের মধ্যে কেউ কিছু বলতে পারছেন না।

উল্লেখ্য যে সুশান্ত এই সময়ে হতাশার মধ্যে ছিলেন। কিছুদিন আগেই তার ম্যানেজারও আত্মহত্যা করেছেন। এর পরে, আজ সুশান্তের আত্মহত্যা সেই ঘটনার সাথে সম্পর্কিত কিনা, পুলিশ তার তদন্ত করছে।

তাঁর ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল ব্যাকআপ ডান্সার হিসাবে

সুশান্ত ব্যাকআপ ডান্সার হিসাবে তাঁর কেরিয়ার শুরু করেছিলেন। টিভিতে তাঁর প্রথম সিরিয়াল ছিল বালাজি টেলিফিল্মের ‘কিস দেশ মে মেরা দিল’। এতে তিনি প্রীত জুনেজার চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এরপরে তিনি ‘প্রীতি রিশতা’ সিরিয়াল দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। এছাড়াও তিনি নাচের রিয়েলিটি শো ”জারা নাচ কে দেখা ২” এবং ”ঝলক দিখলা যা ৪” তে উপস্থিত হয়েছিলেন। তাঁর শেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিটি নেটফ্লিক্সে আই ড্রাইভ। এ বছর তাঁর হৃদয় মুক্তি পেতে চলেছে।

কায় পো ছে, শুদ্ধ দেশী রোম্যান্স, পিকে, গোয়েন্দা ব্যোমকেশ বকশি, এমএস ধোনি: অনটোল্ড স্টোরি, রাবতা, ওয়েলকাম টু নিউইয়র্ক, কেদারনাথ, সোনচিরিয়া, চিচোর, ড্রাইভ এবং দিল বেচারা ছবিগুলিতে অভিনয় করেছেন তিনি ।

সম্প্রতি সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশার আত্মহত্যা

সম্প্রতি ৮ ই জুন ২০২০, সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা স্যালিয়ান মুম্বাইয়ের একটি বিল্ডিং থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করেছিলেন।  তাকে তড়িঘড়ি বোরিভালির একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে, সেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

সুশান্তের শৈশব

সুশান্ত প্রাথমিক শিক্ষা পাটনার সেন্ট কেয়ার্নস হাই স্কুল থেকে করেছিলেন। তারপরে দিল্লির কুলাচি হানরাজরাজ মডেল স্কুলে পড়াশোনা করেন তিনি। তারপরে, তিনি দিল্লী ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ থেকে মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক হন।

সুশান্তের শৈশব কেটেছে পাটনায়। পাটনার রাজীব নগর এলাকায় লোকেরা তার মৃত্যুতে শোকাতুর। তাঁর শৈশবকালীন অনেক বন্ধুবান্ধব বলছেন যে তিনি কীভাবে একসাথে ক্রিকেট খেলতেন, কীভাবে মজা করতেন। লোকেরা তার বাড়িতে যাচ্ছেন তাঁর পরিবারকে সান্তনা জানাতে।

চূড়ান্ত অনুষ্ঠানটি মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত হবে

সুশান্তের বাবা ছাড়াও চার বোনের একটি পরিবার রয়েছে। তারা সকলেই বিহারের বাইরে থাকেন। বোন মিতু সিং একজন রাজ্য পর্যায়ের ক্রিকেটার। জানা যাচ্ছে বড় বোন চণ্ডীগড় থেকে পাটনায় এসে বাবাকে মুম্বাই নিয়ে যাবেন। সেখানে সবাইয়ের উপস্থিতিতে সুশান্তের শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *