অ্যালোভেরা হল এমন একটি ঔষধি গাছ যা হাজার হাজার বছর ধরে বিভিন্ন প্রসাধনী এবং চিকিৎসার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এই উদ্ভিদের গুণের কোনো সীমা পরিসীমা নেই। এই উদ্ভিদটি সরাসরি ব্যবহার করতে পারেন অথবা আপনি এটি বাজার থেকে জেল আকারে কিনতে পারেন। খুবই সহজলভ্য এই উদ্ভিদ। রস হিসেবে খাওয়া যায় আবার ত্বকের প্রদাহে প্রতিষেধক হিসেবেও লাগানো যায়। এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, জিংক, আয়রন, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, জিঙ্ক, ফলিক অ্যাসিড, অ্যামিনো অ্যাসিড ও ভিটামিন-এ, বি৬ ও বি২ ইত্যাদি, যা  বিভিন্ন ভাবে স্বাস্থ্যরক্ষার কাজে লাগে।

 

অ্যালোভেরা কোন কোন ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারেন

১. ত্বকের যত্নে :

বহু বছর ধরে ত্বকের যত্নে অ্যালোভেরা জেল ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ত্বকে র‌্যাশ, চুলকানি, রোদে পড়া দাগ দূর করতে অ্যালোভেরার তুলনা হয় না। যেকোনো উপটান বা প্যাক অথবা সরাসরি এই জেল লাগালে ত্বক উজ্জ্বল ও মসৃণ থাকে এবং বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না।

২. চুলের যত্নে :

চুলের শুষ্ক ভাব এবং ত্বকে চুলকানি দূর করার জন্য অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারবেন। এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল উপাদান চুল পড়া ও খুশকির সমস্যা দূর করতে সাহায্য করবে। তাই অ্যালোভেরা রসের সঙ্গে আমলকীর রস মিশিয়ে চুলে লাগালে এতে চুলের উজ্জ্বলতাও বেড়ে যাবে।

৩. ওজন কমাতে :

ওজন কমাতে অ্যালোভেরার জুস অনেক বেশ কার্যকরী। অ্যালোভেরা জুসের অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান শরীরের জমে থাকা মেদ দূর করে এবং কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই ওজন কমাতে সাহায্য করে।

৪. হজম প্রক্রিয়া :

হজম শক্তি বৃদ্ধিতে অ্যালোভেরার তুলনা হয় না। এর অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান পাকস্থলী ঠাণ্ডা রাখে এবং গ্যাসের সমস্যা দূর করে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক গ্লাস জলের সঙ্গে অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যাবে।

৫. ডায়াবেটিস :

যারা ডায়াবেটিসের সমস্যায় ভুগছেন তারা নিয়মিত অ্যালোভেরা রস খেলে রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ কমিয়ে আনতে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবেন।

৬. হার্ট ও দাঁতের যত্নে :

অ্যালোভেরার জুস কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে রাখে। এটি রক্তের মধ্যে থাকা দূষিত পদার্থ দেহ থেকে বের করে দেয় এবং হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে থাকে। এছাড়াও অ্যালোভেরা জুস দাঁত এবং মাড়ির ব্যথা ও সংক্রমণ নিবারণে সহায়তা করে।

 

আপনার যদি শরীরে নিম্নলিখিত সমস্যাগুলি থাকে তবে অভ্যন্তরীণভাবে অ্যালোভেরা গ্রহণ করবেন না:

অর্শ্বরোগ
কিডনির সমস্যা
রেনাল ডিসঅর্ডার
কার্ডিয়াক অবস্থা
আলসারেটিভ কোলাইটিস
আন্ত্রিক প্রতিবন্ধকতা
ডায়াবেটিস ইত্যাদি

অ্যালোভেরার সম্ভাব্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে রয়েছে:

কিডনি সমস্যা
প্রস্রাবে রক্ত
পটাসিয়াম হ্রাস
পেশীর দূর্বলতা
বমি বমি ভাব বা পেটে ব্যথা আরও অন্যান্য

সতর্কীকরণ : অ্যালোভেরা ব্যবহার করার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন যদি আপনি উপরোক্ত সমস্যার কারণে ওষুধ গ্রহণ করেন তবে তাদের সাথে পরামর্শ করতে পারেন ।

আরও পড়ুন – শরীর সুস্থ রাখতে প্রতিদিন খান দই, বাড়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও

আরও পড়ুন – আয়রনের ঘাটতি দূর করতে শিশুদের দিন এই খাবারগুলি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *