শুধু টেলিকম সেক্টর নয়, এবার থেকে কোনও হাইওয়ে প্রকল্পে সুযোগ দেওয়া হবে না চিনা সংস্থাদের। এমনকী যৌথ অংশীদারিত্বের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম বলবৎ হবে । ক্ষুদ্র, মধ্য ও কুটির শিল্পেও যাতে চিনা ব্যবসায়ীরা না ঢুকতে পারেন, সেটাও লক্ষ্য রাখার কথা বলেছেন নিতিন গড়কড়ি। এই প্রথম মোদী সরকারের কোনও শীর্ষস্থানীয় মন্ত্রী, চীনের বিরুদ্ধে ভারতের অবস্থান স্পষ্ট ভাষায় তুলে ধরেছেন।

সড়ক, পরিবহণ ও এমএসএমই মন্ত্রী গড়কড়ি বলেন, তাঁর আওতায় থাকা কোনও মন্ত্রকে চিনের লগ্নি আর মেনে নেবেন না তারা। এমনকী যৌথ অংশীদারির ক্ষেত্রেও এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। এই সিদ্ধান্ত ভবিষ্যতে টেন্ডারগুলির ক্ষেত্রে লাগু হবে বলে জানান তিনি। ভারতীয় সংস্থাগুলি যাতে টেন্ডারে অংশ নিতে পারে, তার জন্য কিছু নিয়মে ছাড় দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন যে যদি কোনো কন্ট্যাক্টর ছোটো প্রজেক্টের জন্য যোগ্যতা অর্জন করে, তাহলে বড় প্রজেক্টেও সে পারবে। নির্মাণ নীতি এমন ভাবে বদলাতে হবে যাতে ভারতীয় সংস্থাগুলির লাভ হয় বলে জানান কেন্দ্রীয়মন্ত্রী। প্রযুক্তি ও ডিজাইনের ক্ষেত্রে বিদেশি সাহায্য লাগলেও তা চিনাদের থেকে কোন ভাবেই নেওয়া হবে না বলে তিনি জানান।

চিনের থেকে আমদানি বন্ধ করে ভারত আত্মনির্ভর হতে পারবে, এই আশাও করেন তিনি। গালওয়ানে সংঘর্ষের পর থেকেই ধীরে ধীরে ভারত নিজেদের অবস্থান শক্ত করছে। ভারত যে আর চুপ করে চিনের বেয়াদপি সহ্য করবে না, সেটাও স্পষ্ট করে দেন তিনি।

আরও পড়ুন – ভারত-চিন সংঘাতের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে, শুক্রবার লাদাখ যাচ্ছেন রাজনাথ

তথ্যসূত্রঃ হিন্দুস্থান টাইমস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *