শনিবার ১ লা আগস্ট, প্রয়াত হলেন সাংসদ অমর সিং । মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর। তিনি গত মার্চে কিডনির অস্ত্রোপচারে সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন।

২০১৩ সালে কিডনি খারাপের পর থেকেই অশক্ত তাঁর শরীর। গত কয়েক মাস ছিলেন সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে। শেষের কিছুদিন আইসিইউ-তে। পাশে ছিল তাঁর পরিবার। এদিন সকালেও তাঁর টুইটার হ্যান্ডেল থেকে ইদের শুভেচ্ছা ও তিলকের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধা জানানো হয়। অমর সিংয়ের মৃত্যুতে ভারতীয় রাজনীতির প্রেক্ষাপট থেকে মুছে গেল একজন বর্ণময় চরিত্র।

একসময় সমাজবাদী পার্টির দাপুটে নেতা ছিলেন অমর সিং । অসামরিক পারমাণবিক চুক্তি ঘিরে তৈরি সংঘাতে বামফ্রন্ট সমর্থন তুলে নেওয়ার পর সংখ্যালঘু হয়ে পড়ে প্রথম ইউপিএ। সে সময় দলের সুপ্রিমো  মুলায়ম সিং যাদবকে বুঝিয়ে কেন্দ্রের সরকারকে সমর্থনের পরিসর তৈরি করেছিলেন তিনি। কিন্তু ২০১০ সালে অমর সিং ও তাঁর ঘনিষ্ঠ জয়াপ্রদাকে সমাজবাদী পার্টি থেকে বহিষ্কৃত করা হয়েছিল। অভিযোগ ছিল, দলবিরোধী কাজে মদত।

তাঁর মৃত্যুতে শোক জানিয়ে টুইট করেছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং ও কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। বচ্চন পরিবারের একসময় খুব ঘনিষ্ঠ ছিলেন অমর সিং। তাঁর মদতেই সমাজবাদী পার্টির রাজ্যসভার সাংসদ হন জয়া বচ্চন। কিন্তু ২০১৬ সালে সেই সম্পর্কে ফাটল ধরে। যদিও চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে দুই পরিবার ফের ঘনিষ্ঠ হতে শুরু করে। অপরদিকে, ১৯৯৬ থেকে ২০১০ পর্যন্ত টানা রাজ্যসভার সাংসদ ছিলেন অমর সিং। মাঝে ছয় থেক সাত বছর রাজনৈতিক সন্ন্যাস গ্রহণ করেছিলেন। ফের ২০১৭ সালে নির্দল প্রার্থী হিসেবে সমাজবাদী পার্টির সমর্থনে রাজ্যসভার সাংসদ হয়েছিলেন অমর সিং।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *