আমেরিকায় করোনাভাইরাসের সংকটের মধ্যেই ঝুঁকি নিয়ে পুনরায় স্কুল খোলার অনুমতি দেয় ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন। জুলাইয়ের মাঝামাঝি থেকে চালুও করা হয়েছে স্কুলগুলি । রিপোর্ট বলছে, মাত্র দু-সপ্তাহের মধ্যে প্রায় ১ লক্ষ পড়ুয়া করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

আমেরিকার অ্যাকাডেমি অফ পেডিয়াট্রিক্স সম্প্রতি একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়েছে, স্কুল পুনরায় চালুর পর থেকে মাত্র দু-সপ্তাহের মধ্যে এক লক্ষের কাছাকাছি শিশুপড়ুয়ার করোনার টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। সমীক্ষা অনুযায়ী, কোভিড আক্রান্ত পড়ুয়ার সংখ্যা ছাড়িয়েছে প্রায় ৯৭ হাজার । জুলাইয়ের শেষ দু-সপ্তাহের মধ্যে এই ৯৭ হাজার শিশুপড়ুয়ার করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। স্কুলে যাতায়াতের পথেই যে এই সংক্রমণ হয়েছে, রিপোর্টে তা নিশ্চিত করে বলা হয়েছে।

আমেরিকান সংস্থার রিপোর্টে আরও দাবি করা হয়, জুলাইয়ের ওই দু-সপ্তাহে করোনায় আক্রান্ত হয়ে কমপক্ষে ২৫ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। শিশুদের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রবণতা কম বলে যে দাবি এতদিন করা হচ্ছিল, আমেরিকান অ্যাকাডেমি অফ পেডিয়াট্রিক্সের সমীক্ষা রিপোর্ট তা নস্যাত্‍‌ করে দেয়।

মাত্র দু-সপ্তাহে যদি প্রায় এক লক্ষ শিশু কোভিডে সংক্রামিত হতে পারে, তা হলে স্কুল চালু রাখলে, সংখ্যাটা গিয়ে কোথায় পৌঁছবে, তা নিয়ে আশঙ্কা শুরু হয়েছে। অভিভাবকেরা কি এর পরেও প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে সন্তানদের স্কুলে পাঠাবেন? ট্রাম্প প্রশাসন অবশ্য এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য এখনও পর্যন্ত করেনি। স্কুলগুলিও যে পুনরায় বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে, এমনও শোনা যাচ্ছে না।

৩০ জুলাইয়ের মধ্যে আমেরিকায় ৫০ লক্ষ কোভিড সংক্রমণ কেস ধরা পড়ে। এর মধ্যে ৩ লক্ষ ৩৮ হাজার শিশু। এই সময়কালের মধ্যে আমেরিকায় মৃত্যু হয় ১ লক্ষ ৬২ হাজার আক্রান্তের। স্কুল থেকে শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়ানোয় উদ্বেগ বাড়ছে কর্তৃপক্ষের। কী ভাবে প্রাণঘাতী কোভিডের সংক্রমণ ন্যূনতমে কমিয়ে আনা যায়, তা নিয়ে ভাবনাচিন্তা শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

ওয়ার্ল্ডোমিটার ওয়েবসাইট অনুযায়ী, আমেরিকায় ১৪ অগস্ট সকাল পর্যন্ত কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩ লক্ষ ৯৫ হাজার ৪৫৩। সবমিলিয়ে মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ৬৯ হাজার ৮৪৮ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত ৩৫ হাজার ১৫১ জন। একই সময়ে মৃত্যু হয়েছে ৭১৭ জনের। আমেরিকায় বর্তমানে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ২৪ লক্ষ ৪ হাজার ৫৬৭। সেরে উঠেছেন ১৭ লক্ষ ৫০ হাজার ৬৩৬ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *