ধেয়ে আসছে সুপার সাইক্লোন আম্ফান। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন বাংলায় সম্প্রতি যে দুই ঝড় আছড়ে পড়েছিল, সেই বুলবুল ও আয়লার থেকেও ভয়ঙ্কর ক্ষতি করতে পারে।

পারাদ্বীপের ঘূর্ণিঝড়

১৯৯৯ সালের পারাদ্বীপের ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১৬০ কিমি। তিরিশ বছরের ইতিহাসে এমন ঝড় আসেনি ভারতের কোনও রাজ্যে। এই ঘূর্ণিঝড়ে প্রায় ১০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল।

ঘূর্ণিঝড় আয়লা

২০০৯ সালে বাংলার বুকে আছড়ে পড়েছিল ঘূর্ণিঝড় আয়লা। ঘণ্টায় ১১২ কিমি বেগে আছড়ে পড়েছিল দুই ২৪ পরগনার বিস্তীর্ণ সমুদ্র উপকূলে। সেই ক্ষত এখনও শুকোয়নি বাংলার। এখনও সেই ক্ষতে প্রলেপ লাগানোর কাজ চলছে।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল

২০১৯ সালের ৯ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় ফের আছড়ে পড়ে বাংলার উপকূলে। এবার সাগরের অদূরেই বকখালি ও ঝড়খালিতে তাণ্ডব চালায়। তবে ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার বেগে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলে প্রবেশ করলেও, তার ক্ষমতা অনেকটা লঘু করে দেয় সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ অরণ্য। ফলে খুব বেশি ক্ষতিসাধন করতে পারেনি বুলবুল।

ঘূর্ণিঝড় আম্ফান

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানকে পারাদ্বীপের সমগোত্রীয় ঝড় বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আয়লা দ্বিতীয় স্তরের ঝড়। কিন্তু পারাদ্বীপের মতো আম্ফানকে পঞ্চম স্তরের ঝড় বলে মনে করছেন আবহবিদরা। এই দুই ঝড়কে এক্সট্রিমসেভিয়ার সাইক্লোন বলে অভিহিত করা হচ্ছে। আয়লাকে টেক্কা দেবে আম্ফান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *